শিক্ষক নিবন্ধন সনদ ও যোগ্যতা

বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় অনেকে কলেজে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষাদানের যোগ্যতা অর্জন করেছেন। এনটিআরসিএর নীতিমালা অনুযায়ী সহকারী শিক্ষক ও প্রভাষক পদের জন্য আলাদাভাবে নিবন্ধন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে পাস করতে হয়। যাঁরা অনার্স ও মাস্টার্স পাস করে এনটিআরসিএ থেকে শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় পাস করে কলেজে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষাদানের যোগ্যতা অর্জন করেছেন তাঁরা কি মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সহকারী শিক্ষক হিসেবে শিক্ষাদানের যোগ্যতা রাখেন না?

তাঁদের আবার কেন আলাদা করে সহকারী শিক্ষক পদে পাস করতে হবে? যিনি কলেজের গণিত, বলবিদ্যা, ডিফারেনশিয়াল ক্যালকুলাস পড়ানোর যোগ্যতা অর্জন করেছেন তিনি কি মাধ্যমিক স্তরের ঐকিক নিয়ম, সুদ কষার অঙ্ক বা বীজগণিত করাতে পারবেন না? নীতিমালা অনুযায়ী প্রাণিবিদ্যা ও উদ্ভিদবিদ্যা বিষয়ে অনার্স ও মাস্টার্স পাস করলে কেউ সহকারী শিক্ষক হিসেবে সাধারণ বিজ্ঞান পদে আবেদন করতে পারবেন না।

প্রাণিবিদ্যা ও উদ্ভিদবিদ্যায় চার বছরের অনার্স ও এক বছর পড়ে মাস্টার্স পাস করার পর যদি কেউ সহকারী শিক্ষক হিসেবে জীববিজ্ঞান পড়ার যোগ্যতা অর্জন না করেন, তাহলে তিনি পদার্থ, রসায়ন ও গণিতে পাস করে জীববিজ্ঞান সামান্য না পড়েও কিভাবে সহকারী শিক্ষক হিসেবে জীববিজ্ঞান পড়ানোর যোগ্যতা অর্জন করেন? এটা এনটিআরসিএ কর্তৃপক্ষের বৈষম্যমূলক আচরণ।

অথবা পরীক্ষার ফি আদায়ের নামে অর্থ সংগ্রহ হতে পারে, যা গণতান্ত্রিক দেশে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে আশা করা যায় না। বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে কর্তৃপক্ষ যদি প্রয়োজনীয় ও সবার জন্য গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি চালু করে, তাহলে দেশে চাকরিপ্রার্থী বেকার যুবকরা খুবই উপকৃত হবে।

নূরে আলম সিদ্দিকী নূর, বিরামপুর, দিনাজপুর।

[মতামত লেখকের নিজস্ব। মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন]

You may also like...